ব্রেকিং: সাভারে গুলিবিদ্ধ লাশের গায়ে লেখা ‘আমি ধর্ষণের মূল হোতা’ এমপিদের শপথের বৈধতা নিয়ে রিট খারিজ চতুর্থ মেয়াদে জনবন্ধু শেখ হাসিনা : সবিনয় প্রত্যাশা শপথ না নিলে সরকারি সুবিধা পাবেন না ঐক্যফ্রন্ট প্রার্থীরা নতুন মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক ২১ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সংলাপ কী নিয়ে জানতে চান ড. কামাল শরীয়তপুরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ২ শ্রমিকরা কাজে না ফিরলে মজুরি দেয়া হবে না : বিজিএমইএ সংলাপে বসবেন প্রধানমন্ত্রী : ওবায়দুল কাদের সুস্থ হয়ে দেশে ফিরছেন কাজী হায়াৎ

কচুরিপানা ব্যবহারে উপকৃত লাখো চাষি

কৃষি কথা, ব্রেকিং | ১২ অগ্রহায়ন ১৪২২ | Thursday, November 26, 2015

kachuripana1448519163.jpgহাওরজুড়ে কচুরিপানার সমাহার

ওয়ার্ল্ড নিউজ বিডি ডট কম,মো. মামুন চৌধুরী, হবিগঞ্জ,২৬ নভেম্বর : কচুরিপানা ব্যবহারে উপকৃত হবিগঞ্জের হাওর এলাকার লাখো চাষি। এই জেলার বিশাল এলাকাজুড়ে রয়েছে হাওর। বছরের প্রায় ৮ মাসই পানি থাকে এই হাওরে। পানির নিচে মাছ। আর ওপরে প্রাকৃতিকভাবে জন্ম নেয় কচুরিপানা।একসময় তেমন কোনো কাজে আসত না, এখন হাওরবাসীর জন্য বড় উপকারী হয়ে দাঁড়িয়েছে এই কচুরিপানা। হাওরের কৃষকরা ঘরে তোলেন এক ফসল (বোরো ধান)। কৃষকরা প্রায় সকলেই গরু পালন করেন। কিন্তু বর্ষা মৌসুমে গো-খাদ্যের সংকট দেখা দেয়। এ সময় কৃষকরা বিপাকে পড়েন। কৃষকরা বাধ্য হয়ে অন্য স্থান থেকে গো-খাদ্য অধিক মূল্যে কিনে আনতেন। এখন তারা গো-খাদ্য হিসেবে আবিষ্কার করেছেন কচুরিপানা। কৃষকরা বিনা মূল্যে গো-খাদ্য পাচ্ছেন। হাওরে প্রাকৃতিকভাবে কচুরিপানা জন্ম নিচ্ছে।

কচুরিপানা শুধু গরুর খাবার হিসেবেই ব্যবহৃত হয় না, শুকনো কচুরিপানা জ্বালানি হিসেবেও ব্যবহৃত হয়।  তার চেয়ে বড় ব্যাপার হচ্ছে, এ পানা দিয়ে সার তৈরি করে জমিতে প্রয়োগ করে বিষমুক্ত সবজির আবাদ হচ্ছে।

জেলার হাওর অধ্যুষিত বাহুবল, নবীগঞ্জ, হবিগঞ্জ, লাখাই, আজমিরীগঞ্জ, বানিয়াচং, মাধবপুর উপজেলার লাখো হাওরবা

সী কচুরিপানা ব্যবহার করেই গরু পালন করছেন। তার সঙ্গে তারা গোবর ও কচুরিপানা পচিয়ে তৈরি করা জৈব সার (কম্পোস্ট) ব্যবহার করে বিষমুক্ত সবজি চাষে দিন দিন মনোযোগী হচ্ছেন।

জেলার বাহুবল উপজেলার গুঙ্গিয়াজুরী হাওরের বাগদার গ্রামের ফয়সল মিয়া বললেন, ছোট-বড় মিলে ১০টি গরু রয়েছে তার। এদের তিনি কচুরিপানা খেতে দিচ্ছেন। এগুলো খেয়ে গরুগুলো মোটাতাজা হচ্ছে। কচুরিপানা পচিয়ে তিনি সারও তৈরি করছেন। তিনি বলেন বহুরূপেই কাজে লাগছে কচুরিপানা।

একই কথা বললেন আজমিরীগঞ্জের বনশিপ্পার বাসিন্দা খালেদ মিয়াও। তিনি জানান, শীতকালে কম্পোস্ট সার তৈরিতে কৃষকরা ব্যস্ত হয়ে পড়েন। তারা কাদা মাটি ও কচুরিপানা মিশিয়ে করে একত্রে রাখেন। ৪৫ দিন অতিবাহিত হলে এসব পচে যায়। এতে তৈরি হয় সার। এ সার তারা জমিতে প্রয়োগ করেন। তাতে করে চাষাবাদে আসছে সফলতা। এমনভাবে চাষাবাদ করে দরিদ্র কৃষকরা নিজেদের ভাগ্য বদলে আপ্রাণ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছেন।

সূত্র জানায়, জেলার ৮টি উপজেলায় ফসলি জমির পরিমাণ ২,৯৫,৩০০ হেক্টর। উৎপাদনে প্রচুর পরিমাণে সারের প্রয়োজন হয়। অনেক সময় কৃষকরা টাকার অভাবে সার ক্রয় করতে সমস্যায় পড়তে হয়। এ সমস্যা লাঘবে দারুণ কাজ দিচ্ছে কাদামাটি ও কচুরিপানা।

তাদের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে নানাভাবে সহায়তা করছে হবিগঞ্জ কৃষি বিভাগ। এসব সহায়তা পেয়ে কৃষকরা এ সার তৈরিতে উৎসাহ পাচ্ছে। লাখাইয়ের বুল্লার কৃষক বাবুল পাঠান বলেন, ‘গরুকে পানা খেতে দিতে পারছি। তার সাথে সার নিয়ে আর ভাবতে হচ্ছে না। এখন সার তৈরির পদ্ধতি জানি। এ সার তৈরি করতে কোনো টাকা খরচ হচ্ছে না। এখানে প্রচুর পরিমাণে কচুরিপানা ও পচা মাটি পাওয়া যায়।’

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক কৃষিবিদ মো. শাহ আলম বলেন, ‘হাওরে প্রাকৃতিকভাবে প্রচুর কচুরিপানা জন্ম নিচ্ছে। এসব পানা গরু খেতে পারছে। তার সাথে চাষাবাদে হবিগঞ্জের কৃষকরা পূর্বের চেয়ে অনেক অগ্রসর হচ্ছে। আর তাদের নানাভাবে সহায়তা করছে হবিগঞ্জ কৃষি বিভাগ। কৃষকরা কৃত্রিম সার আর গরুর মলের ওপর নির্ভর করে বসে থাকছে না। কচুরিপানা দিয়ে তৈরি করছে প্রাকৃতিক সার। এ সারে চাষাবাদে আসছে সফলতা। তাদের এ সফলতাকে আরো এগিয়ে নিতে আমরা কাজ করছি।’

হবিগঞ্জের জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আশরাফ উদ্দিন আহম্মদ বলেন, ‘এ জেলায় বিশাল এলাকাজুড়ে রয়েছে হাওর। হাওরের জলাশয়ে প্রাকৃতিকভাবে প্রচুর মাছ জন্ম নিচ্ছে। তার সাথে জন্ম নিচ্ছে কচুরিপানা। আর পানায় রয়েছে বহুমুখী উপকার।’

উপসহকারী কৃষি অফিসার তোফায়েল আহমেদ বলেন, কচুরিপানার বহুগুণ রয়েছে। এ পানায় জৈব সার তৈরিতে তেমন কোনো খরচ হয় না। তবে বেশি করে নিজের শ্রম দিতে হয়। এ সার জমিতে প্রয়োগে যেমনটা ভালো ফসল হয়, তেমনি জমির মাটির কোনো সমস্যা হয় না। বরং বেশি পরিমাণে মাটির উর্বরতা বৃদ্ধি পায়